বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর বাসা-প্রতিষ্ঠানেও ভুতুড়ে বিল

প্রকাশ: ২০২০-০৭-০৬ ১৩:২১:২১

করোনাকালীন এই সময়েও সারাদেশে ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের ছড়াছড়ি। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সরকারের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পর্যন্ত এ নিয়ে অভিযোগ করছেন। এবার জানা গেল, খোদ বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদসহ এ বিভাগের বড় বড় কর্মকর্তার বাসা ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানেও ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিল এসেছে।

electricity minister nasrul hamid
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ

আজ রোববার তথ্যটি গণমাধ্যমকে জানিয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, গত মার্চ মাস থেকে আমাদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তারপরও বন্ধ থাকা অফিসেই ভুতুড়ে বিল এসেছে। আমার নিজের বাসায়ও এমন বিল এসেছে।

এদিকে সারাদেশে অতিরিক্ত বিলের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। তাদের তদন্তে প্রায় ৩০০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। কমিটির সুপারিশের প্রেক্ষিতে ইতোমধ্যে চার কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জানা গেছে, বিদ্যুৎ বিভাগের প্রতিষ্ঠান পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেন, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মইন উদ্দিন, বিদ্যুৎ বিভাগের যুগ্ম-সচিব পর্যায়ের চারজন কর্মকর্তাসহ সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তাদের বাসাবাড়িতেও ভুতুড়ে বিল এসেছে।

এ বিষয়ে গতকাল শনিবার প্রতিমন্ত্রী জানান, বাড়তি বিল সমন্বয় করতে যারা ব্যর্থ হয়েছেন এবং বাড়তি বিলের জন্য যারা দায়ী, তাদের শনাক্ত করা হয়েছে। পাশাপাশি ইতোমধ্যে চার লাখের বেশি গ্রাহকের বাড়তি বিলের সমস্যার সমাধান করা হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব সুলতান আহমেদ বলেন, এখন থেকে কোনো ব্যক্তিকে আর বাড়তি বিল দিতে হবে না। কোনো গ্রাহক যদি মনে করেন, তার বাড়তি বিল এসেছে, তাহলে অভিযোগ করুন। তখন সমস্যার সমাধান করা হবে।

ট্যাগ :